Select your Top Menu from wp menus
Last updated: 29/03/2021 at 10:14 PM | আজ বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১ বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১ রমজান, ১৪৪২ হিজরি
শিরোনাম

চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের অনিয়ম-দূর্ণীতি বন্ধে মতবিনিময়

ইমরান আলী : বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতির অধীনস্থ চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের অনিয়ম-দূর্ণীতি বন্ধ, প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম নিয়ে ষড়যন্ত্র ও চক্ষু হাসপাতাল রক্ষার লক্ষ্যে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের নিয়ে মতবিনিময় সভা হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে।
২১ এপ্রিল (শনিবার) দুপুরে মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন নবাবগঞ্জ সরকারী মহিলা কলেজের অব. অধ্যক্ষ ও জেলা দূর্ণীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব ড. মোঃ সিরাজ উদ্দিন।
সভায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের অনিয়মের বিষয় বিস্তারিত তুলে ধরেন চক্ষু হাসপাতালের তৎকালিন কার্যনির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও আহবায়ক কমিটির আহবায়ক অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর সুলতানা রাজিয়া। চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের আর্থিক অনিয়ম, ভূয়া সদস্য দিয়ে আজীবন সদস্যদের তালিকা প্রণয়ন, অবৈধভাবে ও অগঠনতান্ত্রিকভাবে কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন, বিগত সাধারণ সম্পাদকের অর্থ আত্মসাৎ ও স্বেচ্ছাচারিতাসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দূর্ণীতি বিষয় তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা লায়ন মোহাম্মদ আলী কামাল, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মার্জিনা হক, সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর সুলতানা রাজিয়া, প্রফেসর মোঃ ইব্রাহীম, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. নজরুল ইসলাম, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মিজানুর রহমান, প্রবীন হিতৈশী সংঘের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব আজহারুল ইসলাম, সিটি কলেজের অধ্যক্ষ তরিকুল ইসলাম নয়ন, সমাজ সেবক আলহাজ্ব জহুরুল হক, ডা. মোঃ দুরুল হোদা, সাধারণ পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মনিরুজ্জামান মনির, এ্যাড. শাহনেওয়াজ খান পান্নাসহ অন্যরা।
উপস্থিত ছিলেন নাগরিক কমিটির আহবায়ক সৈয়দ আহমেদ বাদশা, রাইহানুল হক লুনা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল হান্নান হান্নু, নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাসিনুর রহমান, গ্রীনভিউ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানা আহমদ, আমিনুল ইসলাম সেন্টু, এ্যাড. আবু হাসিব, নয়মুল বারী, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সভাপতি মনিরুল ইসলাম, কারবালা কলেজের অধ্যক্ষ মসিদুল হক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সাদিকুল ইসলামসহ শতাধিক বিভিন্নস্থানের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।
সভায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের সকল অনিয়ম-দূর্ণীতি প্রতিরোধ করে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতাল রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ নেয়া সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যান সমিতির চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা কমিটি পরিচালিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের উদ্ভুত পরিস্থিতি নিরসনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতাল সম্মেলন কক্ষে সভা করেছে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ কমিটি ও আহবায়ক কমিটি।
২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর ১৯ সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতির চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়। চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের কমিটি গঠন ও আয়-ব্যয়ের হিসেব-নিকেস নিয়ে বড় ধরণের জটিলতা দেখা দেয়ায় বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার খন্দকার মাহবুব হোসেন স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে তৎকালিন কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর সুলতানা রাজিয়াকে আহবায়ক করে ১৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিটি করা হয়। তারপরও জটিলতা দেখা দেয়ায় জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হোসেনকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করে দেন জেলা প্রশাসক। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরেই একটি মহল এই আহবায়ক কমিটিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে প্রবেশ করতে না দিয়ে কক্ষ তালা দিয়ে বন্ধ করে রাখে।
প্রেক্ষিতে প্রশাসনের আওতাধীন “অন্তবর্তীকালীন প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কমিটি” চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা অব্যহত রাখা, মেয়াদ উত্তীর্ণ কার্যকরি কমিটির কর্মকালের প্রশাসনিক ও আর্র্থিক কার্যক্রমের উপর তদন্ত পরিচালনা, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী পরবর্তী পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের কার্যক্রম গ্রহণ করবে এই প্রশাসনিক কমিটি। কিন্তু একটি মহল সরকারী বা আহবায়ক কমিটির নিয়মনীতির কোন তোয়াক্কা না করে এবং কোন ধরণের আলোচনা ছাড়ায় একটি নির্বাচিত কমিটি ঘোষণা করে গত ৩ মার্চ এবং কমিটির পক্ষে বিভিন্নভাবে প্রচারণা চালায়। তবে “অন্তবর্তীকালীন প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কমিটি” তদন্তে অর্থ লেনদেনে অনিয়ম, আজীবন সদস্যদের দেয়া অনুদানের অর্থ ব্যাংকে জমা না হওয়া, স্বেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে মনগড়া কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করা, লক্ষ লক্ষ টাকার গড়মিলসহ নানা অনিয়ম উঠে এসেছে বলে জানা গেছে একটি সুত্রে বলেও জানানো হয় মতনিবিময় সভায়।
এব্যাপারে স্থানীয় আহবায়ক কমিটির আহবায়ক প্রফেসর সুলতানা রাজিয়া জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের পূর্বের কমিটির আর্থিক অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতাসহ বিভিন্ন অনিয়মের বিষয় নিয়ে চরম জটিলতা দেখা দেয়। ফলে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সাধারণ মানুষের সেবা দেয়ার জন্য গড়ে ওঠা চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালের সমস্যা সমাধানের লক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যান সমিতি কর্তৃক একটি আহবায়ক কমিটি গঠন হয়। কিন্তু একটি মহল ষড়যন্ত্র করে বিষয়গুলোকে আরও জটিলতা সৃষ্টি করতে থাকে এবং আহবায়ক কমিটির কাজে বাধা দিতে থাকে বিভিন্নভাবে। বাধ্য হয়েই জেলা প্রশাসক মহোদয়কে বিষগুলো জানানো হয়। জেলা প্রশাসক প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। প্রশাসনের কমিটি স্থানীয় আহবায়ক কমিটির সদস্যদের নিয়ে আলোচনায় বসে। গঠনতন্ত্র ও নিয়ম মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন প্রশাসনের আহবায়ক কমিটি। প্রশাসনিক কমিটি তদন্ত করেছেন, তবে তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ হয়নি। তদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে সঠিকভাবে অনিয়মের বিষয়গুলো সকলের কাছে তুলে ধরা হবে। তিনি বলেন সবচেয়ে বড় কথা, সরকারের অর্থায়নে গড়ে উঠা চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতালকে সকলে মিলে দূর্ণীতিমুক্ত করে একটি স্বচ্ছ প্রতিষ্ঠানে পরিণত এবং সাধারণ মানুষ যেন সঠিকভাবে সেবা পায় সে ব্যাপারে সকলে মিলে একসাথে কাজ করতে হবে।

About The Author

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *