Select your Top Menu from wp menus
Last updated: 29/03/2021 at 10:14 PM | আজ মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৩০ চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০ শাবান, ১৪৪২ হিজরি
শিরোনাম

শিবগঞ্জের শাহাবাজপুরে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ঝড়ে পড়ছে ৩’শ শিক্ষার্থী

sonapur
মোহাঃ মমিনুলইসলাম (শিবগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর জন্মস্থান চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগ্ঞ্জ উপজেলার শাহাবাজপুর ইউনিয়নের কয়েকটি পাড়া নিয়ে ৩হাজার জনবসতির একটি গ্রাম সোনাপুর। এই গ্রামে সোনাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি এক বছর থেকে বন্ধ থাকার কারণে প্রায় ৩’শ ছাত্রছাত্রী শিক্ষা অর্জন করতে না পেয়ে অকালে ঝরে পড়ছে।

সরজমিনে সোনাপুর গ্রামের বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষের সাথে কথা বলে জানাগেছে সরকার ২০১০সালে দেশের বিদ্যালয়হীন গ্রামে ১ হাজার ৫’শটি সরকারী বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের মধ্যে নির্মিত ৪টি বিদ্যালয় হচ্ছে শাহাবাজপুর ইউপির শাহাবাজপুর নাতোর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়. সোনাপুর গোপালপুর সরকারীপ্রাথমিক বিদ্যালয় এবং পাকা ইউপির নিশিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চরবিশরশিয়া কালূপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

বিদ্যালয়গুলি নির্মাণ হলেও সোনাপুর গোপালপুর ছাড়া বাকী তিনটি বিদ্যালয়ে এখন পর্যন্ত শিক্ষাক্রম চালু হয়নি। সোনাপুর গোপালপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে এলাকাবাসীর স্ব-উদ্যোগে ৪ জন বেকার যুবক দিয়ে প্রায় ৩’শ শিশু শিক্ষার্থী ভর্তি করে শিক্ষা কার্য ক্রম চালু করেন। এলাকাবাসীর আশা ছিল বিদ্যালয়টিতে এ ৪ জনই নিয়োগ পাবেন।

কিন্তু ২০১৪সালের সরকারের অধ্যাদেশ অনুযায়ী সরকারী ভাবে শিক্ষক নিয়োগ পদ্ধতির ফলে ঐ বিদ্যালয়ে সেচ্ছায় শিক্ষাদান করা ৪জন শিক্ষিত বেকার যুবক ছিটকে পড়েছেন। এর ফলে বিদ্যালয়গুলিতে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে প্রায় ৩’শ শিশু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। সচেতন ও বিত্তবান কয়েকজন অভিভাবক তড়িঘড়ি করে তাদের শিশু সন্তানদের ৪/৫ কিলোমিটার দূরের বিভিন্ন বিদালয় ও মাদ্রাসায় ভর্তি করলেও দরিদ্র পরিবারের বেশীর ভাগ শিশু শিক্ষার্থীর বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে।

এলাকার আমেনা নামের এক গৃহবধু জানান ২০১৪ সালে তার ছেলে আমিনুল ইসলাম( ১০)কে ৪র্থ শ্রেণীতে ভর্তি করেন। কিন্তু বছরের শেষদিকে বিদ্যালয়টি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাড়ি থেকে প্রায় ৪/৫ কিলোমিটার দুরে পিরোজপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করার পর প্রতিদিনই তার স্বামীর সাথে শিশুটিকে বিদ্যালয়ে পাঠাতে হয় এবং ছুটির সময় আবারো নিয়ে আসতে হয়। শুধু আমেনাই নয় এলাকার দুলাল, তাজিমুল, মতিউর, বাবুল, জালাল, দুলালী, নাজমা, মারুফাসহ শতাধিক নারী-পুরুষ জানান, বিদ্যালয়টি বন্ধ থাকার কারণে তাদের শিশুরা শিক্ষার্জন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কেউ কেউ ৪/৫ কিলোমিটার দুরে ভর্তি করলেও যাতায়াত খরচ ও নিরাপত্তার অভাবে প্রতিদিন বিদ্যালয়ে পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। তাদের দাবী সরকার অনতিবিলম্বে বিদ্যালয়গুলো চালু করে এলাকার প্রায় ৪ শতাধিক শিশু শিক্ষার্থীর শিক্ষা অর্জনের সুযোগ সুষ্টি করা হোক।

এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আলহাজ মোহাঃ ইউসুফ আলি ভুঁঞা জানান শুধু সোনাপুর গোপালপুর নয়, উপজেলায় এধরনের ৪টি বিদ্যালয় আছে। সবকয়টি চালু করা হবে। তিনি আরো জানান অগ্রধিকার ভিত্তিতে ২০১৬ সালের জানুয়ারী মাস থেকে সোনাপুর গোপালপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা হবে।

About The Author

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *