Select your Top Menu from wp menus
Last updated: 29/03/2021 at 10:14 PM | আজ মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৩০ চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০ শাবান, ১৪৪২ হিজরি
শিরোনাম

শুধু রুপের নয় দর্শকদের নজর কেড়েছে তার অভিনয়

porimony-2

শুধু কি রুপের ছটায় দর্শকদের হৃদয়-আলোকিত করা যায়? হয়তো যায়, হয়তো যায়না! থাক, আমরা বরং সে বিতর্কে না জড়ায়। কেননা যাকে নিয়ে আলোচনা তিনিতো শুধুমাত্র রুপের আলোতেই নয়, নিজের অভিনয় দক্ষতা দিয়েও ইতিমধ্যে দর্শকদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। প্রেক্ষাগৃহে ‘মহুয়া সুন্দরী’ ছবিটি মুক্তি পাওয়ার পর থেকে সে জায়গাটা আরও পাকাপোক্ত হয়েছে তার। বলছি বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও ব্যস্ত অভিনেত্রী পরিমনির কথা।

গত শুক্রবার রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে মুক্তি পেয়েছে পরিমনি অভিনীত ছবি ‘মহুয়া সুন্দরী’। প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি প্রদর্শিত হওয়ার পর থেকেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরি। ছবিতে পরির অভিনয় দেখে মুগ্ধ তানিম নামের এক দর্শক বললেন, আগেও পরিমনি অভিনীত বেশ কিছু মুভি আমি দেখেছি। কিন্তু এই ছবিতে তার অভিনয় আমাকে মুগ্ধ করেছে। আমিতো মনে করি, এটি পরির অন্যতম সেরা একটি ছবি।’

ময়মনসিংহ গীতিকা’র জনপ্রিয় উপাখ্যান ‘মহুয়ার পালা’ অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে ‘মহুয়া সুন্দরী’। ছবিতে মহুয়া সুন্দরীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন পরিমনি। দর্শকদের মতো তিনি নিজেও ছুটে গেছেন বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে। কখনোবা পরিবারের সাথে আবার কখনোবা সংবাদকর্মীদের সঙ্গে প্রেক্ষাগৃহ ঘুরে-ঘুরে ছবি দেখেছেন। খুব কাছ থেকে দর্শকদের প্রতিক্রিয়া জানার চেষ্টা করেছেন। সোমবার মুঠোফোনে পরি বলেন, ‘ এখন পর্যন্ত আমার ৭-৮ বার ছবিটি দেখা হয়েছে। এরমধ্যে সম্পূর্ন ছবি দেখা হয়েছে দুইবার, মধুমিতা হলে।’ দর্শকদের কাছ থেকে আশানুরুপ সাড়া পাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন লাস্যময়ী এই অভিনেত্রী। পরি বলেন, ‘ মাশআল্লাহ, দর্শকদের কাছ থেকে বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি।’

সরকারি অনুদানে নির্মিত হলেও ‘মহুয়া সুন্দরী’ পুরোপুরি বাণিজ্যিক ধাঁচের ছবি। ‘মহুয়া সুন্দরী’ ছবির গল্প যাত্রাপালার নায়িকা ছবি রানী আর গ্রামের প্রভাবশালী ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান জীবনকে ঘিরে। ঘটনাক্রমে ছবি আর জীবনের প্রেম হয়। একসময় ছবির মনে হয় সে যেন মহুয়ার পালার মহুয়া। ছবিটি মুক্তি পাওয়ার আগে পরিমনি বলেছিলেন, শ্যুটিং চলাকালীন সময়ে আমি চরিত্রটিতে এমনভাবে ঢুকে পড়েছিলাম যে বাসায় ফেরার পরও মহুয়া সুন্দরীর মতো করেই কথা বলেছি। চরিত্রটি থেকে বের হতে একটু সময় লেগেছে।’ প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি দেখার পর নিজের অভিনয় নিয়ে শতভাগ তুষ্ট কি না? জানতে চাইলে পরি বলেন, ‘ কোনও অভিনেতা/অভিনেত্রী-ই তার অভিনয় নিয়ে শতভাগ সন্তুষ্ট হতে পারে না। তবে আমার সবচেয়ে বড় সার্থকতা হলো আমি দর্শককে কাঁদাতে পেরেছি। আমার অভিনয় ভালো না লাগলে দর্শকদের চোখে নিশ্চয় পানি আসতো না? সে দিক থেকে আমি আমার অভিনয় নিয়ে সন্তুষ্ট।’

যাঁরা প্রোগৃহে গিয়ে একটি পরিপূর্ণ প্রেম, হাসি-কান্না আর বিরহের ছবি দেখতে চান, তাঁদের জন্য এই ছবি। তবে নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়ে যাঁরা লোকজ সংগীত এবং মাটির ঘ্রাণ নিতে চান, তাঁরাও এ ছবি দেখে আনন্দ পাবেন। ছবিতে পরীর বিপরীতে নায়ক হিসেবে অভিনয় করেছেন সুমিত। এতে আরও অভিনয় করছেন মামুনুর রশীদ, সুচরিতা ও জয়রাজ। ছবিটি পরিচালনা করেছেন রওশন আরা নীপা।আমাদেরসময়।

About The Author

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *